নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবীতে মনপুরায় মানববন্ধন

নজরুল ইসলাম মামুন, মনপুরা ॥ বিদ্যুতের ভেলকিতে গত কয়েকমাস ধরে টালমাটাল দ্বীপ উপজেলা মনপুরা। দিনে-রাতে সবমিলিয়ে ৩ থেকে ৪ ঘন্টার বেশি বিদ্যুৎ পায় না স্থানীয়রা। তাই তারা ২৪ ঘন্টা নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবীতে রাস্তায় নেমেছে। বিভিন্ন বাজারে ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে ঘন্টাব্যাপি মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে যোগ দেয় শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা। সোমবার দুপুর ১১ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপি উপজেলা সদর হাজীরহাট বাজারে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এরপরই দুপুর সাড়ে ১২ টা থেকে ১ টা পর্যন্ত একই দাবীতে উপজেলার ফকিরহাট বাজারে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এই সময় দুই বাজারে সকল ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে মানববন্ধনে যোগ দেয়।


এই সমস্ত মানববন্ধনে ‘নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ চাই’ ‘২৪ ঘন্টা বিদ্যুত চাই’ ‘সারাদিন ৩-৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ মানি না’ ‘জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ চাই’ এই সমস্ত দাবী সংবলিত প্লেকার্ড নিয়ে ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি স্থানীয়রা অংশগ্রহন করে। ফকিরহাট বাজারে মানববন্ধন অনুষ্ঠানে স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা ক্লাসরুম ছেড়ে এক শিক্ষার্থী আরেক শিক্ষার্থীর হাত ধরে মানববন্ধনে যোগ দেয়।
একাধিক স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা জানান, বিদ্যুতের কারনে তাদের শিক্ষা জীবন সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে। গত কয়েকমাস ধরে সন্ধ্যার পরই আর বিদ্যুত থাকে না। রাতে টর্চ লাইট কিংবা কুপির আলোয় কোনমতো পড়ালেখা চালিয়ে যেতে হয়। পাশাপাশি অসহ্য গরমে অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে তারা।
মানববন্ধনে অংশ নেওয়া ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা জানান, দিনে-রাতে সবমিলিয়ে ৩-৪ ঘন্টার বেশি বিদ্যুত কপালে জুটে না। তাও আবার তিন থেকে চারবার লোডশেডিয়ের দুর্ভোগ পৌহাতে হয়। এতে তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে দুর্ভোগ পড়েছে দীর্ঘদিন ধরে। এছাড়াও আগে ৮ ঘন্টা বিদ্যুতের যেই বিল আসতো এখন ৪ ঘন্টা বিদ্যুতের বিল আরও বেশি বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীদের। তাই তারা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে রাস্তায়। তারা জাতীয় গ্রিডের বিদ্যুৎসহ ২৪ ঘন্টা নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবী তোলেন।


এদিকে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবীতে লাগাতার কর্মসূচী নির্ধারনে ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক ব্যক্তিদের নিয়ে বেঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন একাধিক ব্যবসায়ী নেতা। সামনে তারা আরও কঠিন কর্মসূচী দিবে বলে তাও জানান তারা।
অপরদিকে দুই বাজারে মানববন্ধনে বক্তব্যে হাজিরহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও হাজিরহাট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নিজাম উদ্দিন হাওলাদার, হাজিরহাট ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক আবুয়াল হোসেন আবু মেম্বার, হাজিরহাট বাজার সমিতির সাবেক সম্পাদক ও ইউপি সদস্য মোঃ মহিউদ্দিন মিয়া, ফকিরহাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতা মোঃ কামাল, ইউপি সদস্য জামাল মেম্বার ও সাবেক ইউপি সদস্য ফকিরহাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক মোঃ আবদুর রব জাতীয়র গ্রিডের মাধ্যমে বিদ্যুতের দাবীসহ নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবীতে লাগাতার কর্মসূচীর ইঙ্গিত দেন।
জানা যায়, উপজেলার চারটি ইউনিয়নের মধ্যে সদর হাজিরহাট ইউনিয়নে ওজোপাডিকো পাওয়ার হাউজের মাধ্যমে ৮ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ করে। কিন্তু গত কয়েক মাস ধরে তিন থেকে চারবার লোডশেডিং এর মাধ্যমে ৩-৪ ঘন্টার বেশি বিদ্যুৎ সরবরাহ করছে না তারা। পাশাপাশি উপজেলার অপর তিনটি ইউনিয়ন ৩ নং উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়ন, ৪ নং দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়ন ও ১ নং মনপুরা ইউনিয়নে সোলার মিনি গ্রিডের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। সেখানেও একই অবস্থা। ৩-৪ ঘন্টার বেশি বিদ্যুৎ পাচ্ছেনা স্থানীয়রা।


এ ব্যাপারে মনপুরার ওজোপাডিকো এর আবাসিক প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মোঃ আবদুছ সালাম জানান, কয়েকটি মেশিন নষ্ঠ তাই বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যাহত হচ্ছে। খুলনা থেকে প্রকৌশলী এসে কাজ করছেন। আশা করছি দ্রুত সময়ে আবারও ৮ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারবো।
এইদিকে মনপুরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) হিসাবে জেলায় সদ্য যোগদানকারী মোঃ জহিরুল ইসলাম এই রির্পোট লেখা পর্যন্ত মনপুরা উপজেলায় না আসায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।
এ ব্যাপারে মনপুরা উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি একেএম শাহজাহান মিয়া ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন মিয়া জানান, মনপুরায় ২৪ ঘন্টা বিদুত্যের জন্য ৫ মেঘাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন সোলার মিনি গ্রীডের কাজ চলমান। কাজ শেষ হলেই সবাই ২৪ ঘন্টা বিদ্যুত পাবে। এছাড়াও এমপি আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবের প্রচেষ্ঠায় জাতীয় গ্রীডের বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য জোর প্রচেষ্ঠা চলছে বলেও জানান তারা।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।