ভোলার পুলিশ সুপার কার্যালয়ে চাকুরী পেলেন ঢাকা বহুভাষী সাঁটলিপি ট্রেনিং সেন্টারের প্রশিক্ষণার্থী রায়হান

টাকা আর মামুর সুপারিশ ছাড়া যোগ্যতায় সরকারী চাকুরী জুটেনা। সমাজে এমন প্রবাদ বিদ্যমান থাকলেও।  বেকার শিক্ষিত, মেধাবী যুবকদের নতুন স্বপ্ন দেখিয়ে সোনার হরিণ খ্যাত সরকারী চাকুরীর জন্য যোগ্য করে গড়ে তুলছেন ঢাকা বহুভাষী সাঁটলিপি ট্রেনিং সেন্টার।
৯৫/২, পশ্চিম কাফরুল, আগারগাঁও তালতলা, ঢাকা’ প্রতিষ্ঠিত এ ট্রেনিং সেন্টার থেকে শত শত মেধাবী যুবকরা প্রতিযোগিতার মাধ্যমে চাকুরী পেয়ে দেশের বিভিন্ন সরকারী দপ্তরে কর্মরত রয়েছে।
সদ্য ভোলার পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সাঁটলিপি ট্রেনিং সেন্টারের প্রশিক্ষণার্থী ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার মৌলভীর হাটের জয়া গ্রামের মোঃ রায়হান এর অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদে চাকরি হয়েছে।
রায়হান চাকুরী পেয়ে সাঁটলিপি ট্রেনিং সেন্টারকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে একটি কমেন্ট করতেও দেখা গেছে।
সাঁটলিপি ট্রেনিং সেন্টারের পরিচালক মোঃ জানে আলম জানান, শিক্ষিত, মেধাবী তরুণদের মনে যে একটা ধারণা যে টাকা আর সুপারিশ ছাড়া যোগ্যতায় চাকুরী হয় না। আমরা ঢাকা বহুভাষী সাঁটলিপি ট্রেনিং সেন্টারের মাধ্যমে এই ধারণাটা পাল্টে দিতে চাই। সারাদেশের শিক্ষিত যুবকদের বুঝিয়ে দিতে চায় তাদের ধারণা ভুল, ঘুষ ছাড়াও মেধায় চাকুরী জুটে।
উল্লেখ : ভোলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে গত নিয়োগেও ৩জন সাঁট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ হয়েছে, তারাও ঢাকা বহুভাষী সাঁটলিপি ট্রেনিং সেন্টারের প্রশিক্ষণার্থী ছিলেন।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।