চরফ্যাশন এখন সন্ত্রাসের জনপদ : ভোলায় সংবাদ সম্মেলনে সাবেক সচিব মেজবাহ উদ্দিন

ইয়ামিন হোসেন : ভোলার চরফ্যাশন-মনপুরা এখন সন্ত্রাস ও ইয়াবার জনপদে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক সচিব ও আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মেজবাহ উদ্দিন। তিনি আরো বলেন, সেখানকার সংসদ সদস্যের কথার বাইরে গাছের একটি পাতাও নরে না। প্রতিটি মানুষই তার কাছে জিম্মি হয়ে আছে। এমনটি বলেছেন আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোলা-৪ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে সম্ভব্য মনোনয়ন প্রত্যাশী, সাবেক সচিব, ও ঢাকা অফিসার্স ক্লাবের সাধারন সম্পাদক, কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা উপদেষ্টা মেজবাহ উদ্দিন। গত ২৪ এপ্রিল সোমবার বিকেলে চরফ্যাশনে গণসংযোগে তার লোকজনের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ২৬ এপ্রিল বুধবার দুপুরে ভোলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

এ সময় তিনি তার বক্তব্যে চরফ্যাশন উপজেলাকে সন্ত্রাস ও মাককের ছোবল থেকে রক্ষার জন্য গনমাধ্যমের সহযোগীতা কামনা করে বলেন, বর্তমানে চরফ্যাশনে চলছে সন্ত্রাসের রাজত্ব। সেখানকার স্থানীয় সংসদ সদস্যের মদদ ও পৃষ্ঠপোষকতায় সেখানকার জনপদ আজ সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অভয়ারন্য হিসেবে রূপ নিয়েছে। পুরো চরফ্যাশন জুড়ে চলছে মাদকের ছয়লাব। যুবসমাজ এখন ধ্বংসের শেষ প্রান্তে চলে গেছে। তার লোকজন দিয়ে মানুষের জায়গা-জমি, ঘরবাড়ি দখল লুটপাটের মধ্য দিয়েই চলছে তার রাম রাজত্ব। স্থানীয় সংসদ সদস্যের ভয়ে প্রশাসনের কাছে কেউই মুখ খুলতে সাহস পায় না। যারা অত্যাচারিত হয়ে আইনের দ্বারস্থ হয়েছেন, তাদেরকে হয় এলাকা ছাড়তে হয়েছে তা না হলে হামলার শিকার হতে হয়েছে বলে জানান সাবেক এই সচিব।

তিনি আরো বলেন, ঈদ উপলক্ষ্যে চরফ্যাশনের ১৮ টি ইউনিয়নের ৫০টি বাজারে জনগণের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছি। শুভেচ্ছা বিনিময়ে জনগণের ঢল দেখে সংসদ সদস্যের নির্দেশে একদল সন্ত্রাসী আমাদের লোকজনের উপর হামলা চালিয়েছে। এতে সাংবাদিকসহ ১৫জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।  গত ৩ দিন ধরে ওই সন্ত্রাসী গ্রুপটি পুরো চরফ্যাশন উপজেলা জুড়ে ত্রাস সৃষ্টি করে আসছে। ঐ সকল সন্ত্রাসীদের কাছে প্রশাসনও অসহায় হয়ে পড়েছে। আর এই সকল সন্ত্রাসীদের একমাত্র মদদ দাঁতাই হচ্ছেন সেখানকার স্থানীয় সংসদ সদস্য।
এমন অপরাজনীতি থেকে চরফ্যাশনের মানুষ মুক্তি চায়। আমার প্রতি এবং মাটি ও মানুষের টানে ছুটে আসা সাধারণ জনগণের উপর বিনা কারনে এমন সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে সাবেক এই সচিব বলেন, বিশ্বের কোথাও সন্ত্রাসীরা স্থায়ীভাবে থাকতে পারেনি। এমনকি বাংলাদেশেও তা কখনো সম্ভব হবে না। কোন একদিন তাদের পতন হবেই হবে ইনশাআল্লাহ।

ঢাকা অফিসার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মেজবাহ উদ্দিন বলেন, আমি এখনো চরফ্যাশন ও মনপুরায় রাজনৈতিক কোন কর্মসূচী না করলেও আমার জনপ্রিয়তা ঈর্ষানিত হয়ে ও ভয় পেয়েই আমার লোকজনের উপর হামলা চালিয়েছেন সংসদ সদস্যের লালিত ক্যাডার বাহিনীরা । যদিও আমি সেখানে আমার লোকদেরকে শতভাগ শান্ত রাখার চেষ্টা করেছি। তা না হলে সেদিন সেখানে প্রাণহানির মতোও ঘটনা ঘটে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিলো।

এ সময় তিনি আসন্ন সংসদ নির্বাচনে আ’লীগ থেকে মনোনয়ন দিলে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে নিজের সিদ্ধান্ত সাফ জানিয়ে দিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, চরফ্যাশন ও মনপুরা বাসীর জীবনে শান্তির বাতাস বয়ে আনতেই তিনি আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে সেখানকার জনগণের পাশে থেকে তাদের জন্য কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। এখন শুধু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তর অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই রাজনীতির মাঠে সক্রিয় হয়েছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন মেজবাহ উদ্দিন।

এ সময় প্রেসক্লাবে উপস্থিত ছিলেন, মেজবাহ উদ্দিনের সাথে থাকা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সহ ভোলার বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণ।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।