ভোলার লালমোহনে বিধবা নারীর ঘর-জমি দখল ও মারধরের অভিযোগ

লালমোহন প্রতিনিধি ॥ ভোলার লালমোহনে বিধবা নারী কোহিনুরের ঘর ও জমি জোর করে দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কোহিনুরের স্বামী মারা যাওয়ার পর তার বাবা তার নামে ১৬ শতাংশ জমি লিখে দেয়। বাবার দেয়া জমিতে থাকার জন্য ঘর তৈরী করে চট্রগামে গার্মেন্টসে চাকুরী নেয় কোহিনুর। মাঝে মধ্যে বাড়ীতে এসে তার ঘরে থাকে। এরই মধ্যে কোহিনুরের সম্পত্তি ও ঘরের উপর নজর পরে একই এলাকার আব্দুল মালেকের ছেলে হুমায়ুন কবির গংদের। কোহিনুরের ঘরে কেহ না থাকায় হঠাৎ গত শনিবার রাতে হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে তার ঘরের সামনে নতুন একটি ঘর তৈরী করে। এবং অন্য যায়গায় টিন দিয়ে ঘর তৈরী করে রেখেছে এখানে উত্তোলন করতে। ঘটনাটি চরভূতা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড তারাগঞ্জ এলাকার।
কোহিনুর তার ঘরের চাবি রেখে যায় তার ভাই এর স্ত্রী জয়নব বিবি (৬০) এর কাছে। সোমবার দুপুরে জয়নব বিবি চাবি নিয়ে কোহিনুরের ঘর খুলতে আসলে হুমায়ুন কবিরগংরা তাকে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে বেদম প্রহার করে এবং কোহিনুরের ঘর ভাংচুর করে। তার ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্বার করে লালমোহন হাসপাতালে ভর্তি করে।
ভুক্তভোগী কোহিনুর বলেন, আমার বাবা আমাকে জমি দিয়ে গেছেন। সে জমি বালি দিয়ে ভরাট করে আমি ঘর করেছি থাকার জন্য। আমি আমার সংসার পরিচালনা করতে গিয়ে চট্রগামে গিয়ে গার্মেন্টস করি। মাঝে মধ্যে ছুটি নিয়ে বাড়ীতে আসি। আমার ঘরের চাবি আমার ভাবীর কাছে রেখে যায়। এখন আমাকে অসহায় পেয়ে হুমায়ুন কবিররা আমার জায়গা জোর করে দখল করতেছে। আমার ভাবিকে তারা মারধর করেছে সে এখন হাসপাতালে আছে। আমাকে বিধবা ও অসহায় পেয়ে তারা আমার সাথে জোরজুলুম করছে। আমি প্রশাসনের কাছে এই জুলমবাজদের বিরুদ্ধে ন্যায় বিচার আশা করছি।
এ ব্যাপরে অভিযুক্ত হুমায়ুন কবির বলেন, আমাদের জমিতে আমরা ঘর করতেছি। কোহিনুর এখানে আগে আমাদের জমিতে ঘর তুলছে। এখন আমরা তাকে আর এখানে থাকতে দিব না। ঘর ভাঙার ব্যাপরে বলেন, আমরা তার ঘর ভাঙ্গি নাই। কোহিনুর নিজের ঘর নিজে ভেঙ্গেছে।
এ ব্যাপারে লালমোহন থানার এসআই মোশারফ বলেন, বাদীর অভিযোগটি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।