সংস্কারের অভাবে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে ভোলার বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল বাস টার্মিনাল

মোঃ ওমর ফারুক ॥ দ্বীপজেলা ভোলায় সংস্কারের অভাবে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে আধুনিক বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল। দীর্ঘ ৩৪ বছরে অনেকখানি ধ্বসে পড়েছে টার্মিনাল ভবনটি। গন শৌচাগার আর আবর্জনার ভাগারে পরিনত হয়েছে ভবনটি। খানা-খন্দে ভরে গেছে ভেতরের রাস্তাগুলো। ভেঙ্গে ঝরঝরে হয়েছে চার পাশের নিরাপত্তা দেয়াল। এমনকি যাত্রীদের জন্যও নেই নূন্যতম কোন সুযোগ সুবিধা।
জানা গেছে, ১৯৮৮ সালে সাবেক এলজিআরডি মন্ত্রী ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র প্রয়াত নাজিউর রহমান মঞ্জু’র আধুনিক ও দৃষ্টি নন্দন এই বাস টার্মিনালটি স্থাপন করেন। প্রায় আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় দৃষ্টিনন্দন বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল বাস টার্মিনাল। আধুনিক এই টার্মিনালে যাত্রী ও শ্রমিকদের জন্য ছিল অনেক সুযোগ সুবিধা। যাত্রীদের জন্য ছিল সুন্দর ওয়েটিং রুম। ছিল ক্যান্টিন-টয়লেট, নামাজের স্থান এবং বাস চালক ও শ্রমিকদের জন্যও ছিল বিশ্রামের ব্যবস্থা। ছিল বিভিন্ন ধরনের বৈদ্যুতিক আলোর ব্যবস্থা। কিন্তু দীর্ঘ বছর ধরে সংস্কার আর অব্যবস্থাপনার কারণে মুল ভবনটি বিধ্বস্ত হয়ে এখন আবর্জনার ভাগাড়ে পরিনত হয়েছে।
আরো জানা গেছে, নির্মাণের ৩৪ বছর ধরে কোনো সংস্কার কাজ না হওয়ায় টার্মিনালটি প্রায় ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ভেতরের রাস্তাগুলো ভেঙে বড় বড় গর্তে পরিণত হয়েছে। প্রতিদিনই অচল হয়ে পড়েছে গণপরিবহন। ড্রেনেজ ব্যবস্থাও বেহাল। টার্মিনালের বাউন্ডারির ভিতরে ভাঙা রাস্তার কারণে বিশৃঙ্খল ভাবে রাখা হচ্ছে বাসগুলো। বর্তমানে নেই কোনো বৈদ্যুতিক আলোর ব্যাবস্থা। সন্ধার পরে অন্ধকারে হয় এক ভূতুড়ে পরিবেশ। রাতের বেলায় অন্ধকার পরিবেশে মাদক সেবনকারীদের নিরাপদ আড্ডাখানায় পরিনত হয় পুরো এলাকা।
এদিকে, টার্মিনালে যাত্রী উঠা নামা করার সুবিধা না থাকায় নিয়মিত যাত্রীবাহী বাস মহাসড়কের উপর থেকেই যাত্রী বোঝাই করে ছাড়তে হচ্ছে। ফলে মহাসড়কের উপর হরহামেশাই সৃষ্টি হয় যানজটের। প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনাসহ নানা ভোগান্তিতে পড়তে হয় সড়কে চলাচলকারী বিভিন্ন পরিবহন, যাত্রী ও সাধারণ মানুষদের।
অন্যদিকে, বাসটার্মিনাল স্থাপনের প্রথম থেকে সার্বিক ব্যবস্থাপনাসহ পরিচর্যার সকল দ্বায়িত্ব ভোলা জেলা পরিষদের কাছে থাকলেও পরবর্তীতে ভোলা পৌর কর্তৃপক্ষের টানাটানিতে শেষতক পৌরসভা ব্যবস্থাপনার দ্বায়িত্ব পালন করে। কিন্তু দীর্ঘ বছর কোনো সংস্কার না হওয়ায় ভোলার একমাত্র কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনালটি এখন প্রায় পরিত্যক্ত হওয়ার পথে। এই দৃষ্টিনন্দন বাসটার্মিনালটি দ্রুত সংস্কারের দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগী সহ জেলার আপামর নাগরিকবৃন্দ।
এ বিষয়ে ভোলা বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম বলেন, টার্মিনালের রাস্তায় গর্র্তের কারণে চলাচলে অসুবিধা হয়। প্রতিদিনই বাস মেরামত করতে হয়। মূল সড়কে যাত্রী ওঠা-নামা করতে হয়। এতে যানজট লেগে যায়। টার্মিনালটি দ্রুত সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন তিনি।
তবে টার্মিনালটির উন্নয়নে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ণে নতুন বাস টার্মিনাল নির্মাণে ২৫ কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পৌর মেয়র আলহাজ্ব মনিরুজ্জামান মনির। এখন ডিজাইন তৈরি করা হচ্ছে। দ্রুত কাজ শুরু হবে।
পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী বলছেন, আধুনিক বাস টার্মিনাল নির্মাণের জন্য ২৫ কোটি টাকার একটি প্রকল্প নেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, এই বাস টার্মিনাল থেকে জেলার ৭ উপজেলায় প্রতিদিন ১৭৮টি বাস-মিনিবাসে প্রায় ১৫ হাজার যাত্রী চলাচল করে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।