ভোলার আলীনগরে রাস্তার মাঝে খুটি ॥ জনসাধারণের ভোগান্তি

ভোলার বাণী রিপোর্ট ॥ ভোলা সদর উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের চৌমুহনি-টু-গজারিয়া পোল গোড়া সড়কের সংস্কারের কাজ চলছে। এ সড়কের গজারিয়া পোল গোড়া থেকে শুরু হয়ে উত্তর দিকে কয়েক কিলোমিটার রাস্তার কার্পেটিং করা হলেও সামনের অনেকখানি অংশ এখনও কার্পেটিং করা হয়নি। কার্পেটিং না হওয়া সড়কের এক স্থানে মাঝ খানে পোতা হয়েছে খুটি। খুটিগুলো স্থাপনের কারণে এ রুট দিয়ে যানবাহন চলাচলে ব্যঘাত ঘটছে। রাস্তার মাঝ বরাবর প্রায়ই স্থানে খুটি স্থাপন করার কারণে চলাচল করতে গিয়ে অনেক পরিবহণকে রাস্তার কিনার দিয়ে যেতে হচ্ছে। এতে যেমন ঝুঁকি রয়েছে দুর্ঘটনা ঘটার, তেমনি রয়েছে প্রাণ হানির সংকাও। এছাড়া কিছু অসাধু ব্রিকস এর দালালরা তাদের অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য এ রাস্তায় খুটি স্থাপন করে এমনটাই জানা গেছে অনুসন্ধানে। তাই এই রুট দিয়ে চলাচলকারী যানবাহন চালক এবং সাধারণ জনগণ এবং ব্রিকস ব্যবসার সাথে জড়িত ব্যবসায়ীরা রাস্তার মাঝ থেকে খুটিগুলো অপসারণ করার দাবী জানিয়েছেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ভোলার উত্তর দিঘলদী ইউনিয়নে রয়েছে বেশ কয়েকটি ইটভাটা। ওই সকল ইটভাটার ব্যবসায়ীরা ভোলা সদরের সাথে ব্যবসা করে আসছে। ওই সকল ব্যবসায়ীরা ভোলা সদরের সাথে ব্যবসা করতে না পারে তার জন্য কিছু অসাধু দালালরা তাদের অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য গজারিয়া পোল গোড়া থেকে চৌমুহনি রুটে চলাচলের রাস্তার মাঝ খানের বেশ কয়েক জায়গায় খুটি স্থাপন করে। তারা নিজেদের উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য রাস্তার মাঝ খানে খুটি স্থাপন করাটা মেনে নিচ্ছেন না স্থানীয় জনগণ।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক লোক বলছেন, চেয়ারম্যানের অনুমতি নিয়ে এবং জনগণের স্বার্থে যদি রাস্তার মাঝ খানে খুটি স্থাপন করতো তা হলে সেটি মেনে নেয়া যেত। কিন্তু অনুমতি না নিয় ওই সকল অসাধু দালালরা তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য এ কাজ করেছে, এটা মেনে নেয়া যায় না। আমরা রাস্তার মাঝ খান থেকে স্থাপিত খুটি অতি সত্তর অপসারন চাই।
এই রুট দিয়ে অটোরিকশা নিয়ে চলাচলকারী ড্রাইভার মালেক, মিজান, রুহুল আমিন বলেন, গজারিয়া পোল গোড়া থেকে কয়েক কিলোমিটার রাস্তার কার্পেটিং করা হয়েছে ঠিক। কিন্তু বেশির ভাগ রাস্তাই দীর্ঘদিন যাবত কার্পেটিং না করে ফেলে রেখেছে। এতে এই রুট দিয়ে চলাচল করতে আমাদের যেমন সমস্যা হয়, তেমনি যাত্রীদেরও ক্ষতি হয়। রাস্তার ধুলো-বালিতে একাকার হয়ে যেতে হয়। এছাড়া রাস্তার মাঝ বরাবর খুটি পোতায় আমাদের চলাচল করতে অনেক সমস্যা হচ্ছে। রাস্তায় চলতে গিয়ে একেবারে কিনার দিয়ে যেতে হয়। তখন আমরা ঝুঁকির মধ্যে থাকি, কখন গাড়িটি উল্টে যায়। যদি গাড়ি উল্টে যায় তা হলে যেমন আমাদের ক্ষতি হবে, তেমনি প্রাণ হানির সংকাও রয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান বশির আহমেদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গজারিয়া পোল গোড়া থেকে কয়েক কিলোমিটার রাস্তার কার্পেটিং করা হয়েছে এবং অনেক খানি এখনও বাকি রয়েছে। কার্পেটিং না করা সেই রাস্তায় দ্রুত কার্পেটিং সম্পন্ন করে জনগণের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য আমি ঠিকাদারী প্রতিস্থানকে বলবো। রাস্তার মাঝ খানে খুটি স্থান করে চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি করার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি দেখিনি এবং আমাকে কেউ জানায়নি। আপনাদের কাছ থেকে শুনেছি। রাস্তার মাঝ খান থেকে খুটি অপসারণের লক্ষে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হবে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।