নিমেষেই নিঃস্ব লালমোহনের নূরনবী

লালমোহন প্রতিনিধি ॥ ভোলার লালমোহনের ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের চরকালাচাঁদ এলাকার মৃত খোরশেদ আলমের ছেলে মো. নূরনবী। ৪ সন্তান আর স্ত্রী নিয়ে তার সংসার। কৃষি কাজ আর পান বিক্রি করে কোনো রকমে চলে নূরনবীর সংসার। তবে মঙ্গলবার সকালে বিদ্যুতের শর্টসার্কিটের আগুনে নিমেষেই নিঃস্ব হয়ে গেছেন তিনি। আগুনে পুড়ে গেছে তার ঘরে থাকা চাউল, আসবাবপত্র, নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকার আর প্রয়োজনীয় সকল মালামাল। সব হারিয়ে এখন অসহায় হয়ে পড়েছেন নূরনবী। এ ঘটনায় চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তিনি।
নূরনবী বলেন, সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে আমার ছোট ছেলে ঘরে আগুন দেখে চিৎকার দেয়। এরপর স্থানীয়রা এসে আগুন নিভানোর চেষ্টা করে। পরে খবর পেয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে আসে ফায়ার সার্ভিসও। তাদের প্রায় দেড় ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসলেও এরই মধ্যে পুড়ে যায় ঘরের ভিতরে থাকা সবকিছু। টিনসেড ঘরটিরও প্রায় ৯৫ ভাগ পুড়ে গেছে। এতে করে ঘর ও ঘরের মধ্যে মালামালসহ আমার প্রায় ৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, আমি সামান্য কৃষি কাজ আর পান বিক্রি করে সংসার চালাই। এখন আগুনে আমার সব পুড়ে গেছে। এই ক্ষতি পোষানোর সাধ্য নেই। এখন সন্তান-স্ত্রী নিয়ে কোথায় থাকবো-কোথায় খাবো কিছুই বুঝতে পারছি না। আমি এখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছি। সরকারের কাছে নতুন করে আমার ঘরটি তোলতে প্রয়োজনীয় সহায়তা কামনা করছি।
স্থানীয় মাহাতাব উদ্দিন হাসান জানান, নূরনবী একজন অসহায় মানুষ। এই অগ্নিকান্ডে তার অনেক বড় ক্ষতি হয়েছে। নতুন করে এখন ঘর তোলারও সাধ্য নেই নূরনবীর। তাই আমাদের দাবী সরকারিভাবে যেন তাকে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করা হয়।
এ ব্যাপারে লালমোহন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সোহাগ ঘোষ বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষ থেকে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে পরিবারটিকে আমরা সর্বোচ্চ সহায়তা প্রদানের চেষ্টা করবো।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।