কোস্টগার্ডের সঙ্গে জলদস্যুদের গুলিবিনিময়, অস্ত্রসহ আটক-৩

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার বয়ারচরের টাংকির ঘাট এলাকায় কোস্টগার্ডের সঙ্গে জলদস্যুদের গুলিবিনিময় হয়েছে। এ ঘটনার পর জলদস্যুদের আস্তানা থেকে তিনটি আগ্নেয়াস্ত্র, চার রাউন্ড গুলি, পাঁচটি দেশীয় তৈরি রামদাসহ তিন জলদস্যুকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার ভোরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এসময় কোস্টগার্ড আত্মরক্ষার্থে ১৮ রাউন্ড গুলি করে বলে জানা গেছে। আটক তিন জলদস্যু হলেন, লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চরগাজী ইউনিয়নের চর দরবেশ গ্রামের মৃত মো. শাহ আলমের ছেলে মো. আব্দুর রব (৫৫), একই এলাকার আব্দুর রহিম (৩০) ও মো. রবিন (২৪)।
কোস্টগার্ড জানায়, জলদস্যুরা নদীতে ডাকাতি করার প্রস্তুতি নিচ্ছে এ খবর পেয়ে রাতে অভিযান চালায় কোস্টগার্ডের একটি টিম। এসময় কোস্টগার্ডের উপস্থিতি টের পেয়ে জলদস্যুরা গুলি শুরু করে। পাল্টা ছুড়ে কোস্টগার্ডও। পরে পালিয়ে যাওয়ার সময় তিন জলদস্যুকে আটক করে কোস্টগার্ড। এরপর জলদস্যুদের আস্তানা থেকে একটি পিস্তল, দুটি বন্দুক, চার রাউন্ড গুলি, চারটি পাইরোটেকনিক (সাউন্ড গ্রেনেড) ও পাঁচটি দেশীয় তৈরি রামদা জব্দ করা হয়।
স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, আব্দর রব দীর্ঘদিন ধরে নদীতে ডাকাতি করে আসছিলেন। তার বাড়ি হাতিয়া উপজেলার পার্শ্ববর্তী রামগতি উপজেলায়। তিনি হাতিয়ার সীমানা এলাকা টাংকির ঘাটে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে বিভিন্ন অনৈতিক কার্যক্রম চালিয়েছেন। তার বিরুদ্ধে হাতিয়া থানাসহ পার্শ্ববর্তী অন্যান্য থানায়ও বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।

কোস্টগার্ডের স্টেশন কমান্ডার লেফটেন্যান্ট এএসএম লুৎফর রহমান বলেন, আটক জলদস্যুদের অস্ত্রসহ হাতিয়া থানায় সৌপর্দ করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কোস্টগার্ড বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে মামলা করবে বলে জানা গেছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।

You cannot copy content of this page