সর্বশেষঃ

লকডাউনেও নৌ-পথ দিয়ে ভোলায় আসছে মানুষ

লকডাউন উপেক্ষা করে করোনা ঝুঁকি নিয়ে নৌপথ দিয়ে ভোলায় আসছে মানুষ। এদের কেউ মানছে না স্বাস্থ্যবিধি-সামাজিক দূরত্ব। লকডাউনের তৃতীয়দিন শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) সকালে ইলিশা হয়ে শতাধিক মানুষকে আসতে দেখা যায়।
প্রশাসনের কঠোর নজরদারি থাকা সত্ত্বেও লুকিয়ে যাতায়াত করছে এসব মানুষ। রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে দক্ষিণাঞ্চলের কিছু সংখ্যক মানুষ গ্রামে ফিরছেন। লকডাউনের বিধি-নিষেধ লঙ্ঘন করেই গাদাগাদি করেই ফিরছেন তারা। এতে একদিকে যেমন করোনা সংক্রামনের ঝুঁকি বাড়ছে অন্যদিকে অন্যদেরও ঝুঁকিতে ফেলছেন তারা।
ইলিশার বাসিন্দা মিজানুর রহমান জানান, সকালে ভোলা-লক্ষ্মীপুর রুটের একটি ফেরি দিয়ে শতাধিক মানুষকে আসতে দেখা গেছে। তাদের মধ্যে কেউ স্বাস্থ্যবিধি কিংবা সামাজিক দূরত্ব মানছে না। এছাড়াও ট্রলার দিয়েও উত্তাল নদী পাড়ি দিয়ে মাঝে মধ্যে মানুষকে আসতে দেখা যায়।
স্থানীয়রা জানান, লকডাউন উপেক্ষা করে লক্ষীপুর থেকে ট্রলার কিংবা ফেরিতে মাঝে মধ্যেই ভোলায় চলে আসছে মানুষ। কেউ কেউ আবার ট্রলার দিয়েও চলে আসছেন। এতে করোনা সংক্রামনের ঝুঁকি বাড়ছে।
ঔক্ষ্মীপুর ফেরির ইনচার্জ কাওসার হোসেন জানান, আমরা কোনো মানুষকে ফেরিতে উঠতে দেই না, শুধুমাত্র পণ্যবাহী পরিবহন ফেরিতে যাতায়াত করছে। রাতে ২-১ জন ফেরিতে উঠতে পারে। তবে তাদের ঠেকানোর দায়িত্ব পুলিশের।
ভোলা ফেরির ইনচার্জ পারভেজ খান বলেন, ভোলা থেকে লক্ষ্মীপুর ফেরিতে শুধুমাত্র জরুরি পণ্য পরিবহন যাচ্ছে, যাত্রীদের উঠতে আমরা বাধা দিচ্ছি।
ভোলা নৌ-থানার ওসি সুজন পাল জানান, করোনা সংক্রামণরোধে লকডাউন প্রতিপালনে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে। কেউ লকডাউন উপেক্ষা করে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশি বাধার মুখে পড়তে হবে।

সুত্র : বাংলানিউজ।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।