চরফ্যাশনের সন্ত্রাসী মুরাদের ১৭ বছরের সাজা

ভোলার চরফ্যাশনের সন্ত্রাসী ২১ মামলার আসামি মুরাদ (৩৮) তার ভাই রাজিব (২৮) কে বৃহস্পতিবার ১লা এপ্রিল চরফ্যাশন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. নুরুল ইসলাম চাদাঁবাজীসহ বিভিন্ন ধারায় ১৭ বছর ১ মাসের কারাদন্ডাদেশ দিয়েছেন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তার অপর সহযোগী আজিজ, লিটন, শহিদ, ফিরোজ ও ফজলুকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। দন্ডিত মুরাদ হোসেন ও তার ছোট ভাই রাজিব চরফ্যাশন উপজেলার আহাম্মদপুর ইউনিয়নের আবুল বাশার চাপরাশীর ছেলে।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সনের ২২ নভেন্বর রাতে নিজ বাড়ি ফেরার পথে সন্ত্রাসী মুরাদ ও তার ভাইসহ আরও কয়েকজন অস্ত্র সজ্জিত হয়ে হাজির হাট ব্রিজের উপরে বাজারের স্ব-মিল ব্যবসায়ী মোঃ ইউসুফকে অবরুদ্ধ করে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে তাকে মারধর করে তার থেকে ১৮হাজার টাকা নিয়ে যায়। দাবীকৃত বাকী না দিলে তাকে প্রাননাশের হুমকি দেয়। এ ঘটনায় ২০১৪ সনের ২৪ নভেন্বর মো. ইউসুফ বাদী হয়ে মুরাদ, রাজিব, লিটন, আজিজ ও ফজলু, আঃশহীদ ও ফিরোজকে আসামি করে চরফ্যাশন থানায় চাদাঁবাজী ও হত্যা চেষ্টার একটি মামলা দায়ের করেন।
স্থানীয় সন্ত্রাসী মুরাদ মেম্বর বিরুদ্ধে থানায় মাদক, চাদাঁবাজী, ডাকাতি, প্রতারণা, সহ আরও ১৮টি মামলা বিচারাধীন আছে। এর আগে মুরাদের বিরুদ্ধে একই আদালতে আরও দুইটি চাদাঁবাজীর মামলায় পৃথক পৃথকভাবে ৪০ বছরের সাজা দেয়া হয়েছে। বর্তমানে মুরাদ পলাতক রয়েছে। এদিকে তার এই রায়ে আহম্মদপুর এলাকাল সাধারণ মানুষ স্বস্তিতের রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।