চরফ্যাশনের কুকরি-মুকরি-তে ঝুলন্ত ব্রীজ : ভূমিকা রাখবে অর্থনীতিতে

পর্যটকদের জন্য নতুন রূপে সাজানো হয়েছে বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লিলাভূমি চর কুকরি মুকরি নারিকেল বাগান। যুক্ত করা হয়েছে রেস্ট হাউজ, বনের মাঝে ঝুলন্ত ব্রীজ, জিপ ট্রাকিং, রেস্টিং বেঞ্চসহ নানা প্রকল্প। যার একপাশে সমুদ্র, আরেক পাশে ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল। মাঝখালে বেলাভূমি। দিগন্ত বিস্তৃত অপরুপ এ দৃশ্য-কুইন আইল্যান্ড অব ব্যাঙ্গল নামে পরিচিত ভোলার চর কুকরি মুকরি। এসব প্রকল্পে কর্মসংস্থান হয়েছে হাজারো মানুষের।
সূত্রে জানা গেছে, কুকরী-মুকরীর চরটি পর্যটকদের কাছে আরও আকর্ষণীয় করতে ইকো-ট্যুরিজম প্রকল্পের মাধ্যমে নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। তারুয়ার দ্বীপ ও নারিকেল বাগানে পর্যটকদের জন্য ল্যান্ডিং স্টেশন, রেস্টিং বেঞ্চসহ নানা ধরণের সুবিধার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে পাল্টে গেছে চর কুররি মুকরির দৃশ্যপট। এ প্রকল্পের কারণে কর্মসংস্থান হয়েছে আড়াই হাজার মানুষের। পর্যটকের আগমন আরও বাড়বে বলে মনে করেন সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক।
ভোলা চর ফ্যাশন পরিবার উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন জানান, এখানকার মানুষ শুধুমাত্র মাছের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলো। এখন তারা বিভিন্নভাবে ইকোট্যুরিজমের সাথে যুক্ত হয়ে তাদের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়ন হয়েছে।
২০১৯ সালে পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন ১ কোটি টাকা ব্যয়ে ইকোট্যুরিজম প্রকল্পের আওতায় সাগর ও বনকে নয়নারিভাম রুপে উপযোগ্য করে তুলতে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করে। ২০২১ সালে সুফল পেতে শুরু করে পর্যটক ও স্থানীয়রা।
পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন-পিকেএসএফ এর সিনিয়র মহা ব্যবস্থাপক ও সমন্বয়কারী ড. আকন্দ মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা চিন্তা করছি ট্রি-হাউজ এবং ট্রি-রেষ্টুরেন্ট করার। সার্ভিস প্রোভাইডারদের দক্ষতা বাড়াতে হবে। যেহেতু তাদেরকে ফরেনার ডিল করতে হবে।
সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোক্তারা এগিয়ে আসলে চর কুকরি মুকরি একটি অন্যতম আকর্ষণীয় পর্যটন স্থান হতে পারে বলে মনে করেন জনপ্রতিনিধি।
চরফ্যাশনের কুকরি মুকরি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাসেম মহাজন বলেন, পর্যটকদের আবাসিক সমস্যার সমাধানকল্পে আমি আহ্বান জানাচ্ছি। পর্যটকদের সুযোগ সুবিধা বাড়লে চর কুকরি মুকরি অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখবে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।