ভোলায় কোকো ট্রাজেডি ১১ বছর

আজও কাঁদে স্বজনহারা মানুষগুলো

ফাইল ছবি।

আজ ২৭ নভেম্বর কোকো ট্রাজেডির ১১ বছর। ভোলার ইতিহাসে একটি ভয়াবহ শোকাবহ দিন। আজও স্বজনহারা মানুষ নীরবে ডুকরে কাঁদে। স্মৃতিপট থেকে মুছতে পারে না সেই দুর্বিষহ দিনটি। সেদিনের কথা মনে করে এখনও আঁতকে ওঠে মানুষ।

২০০৯ সালের এই দিনে লালমোহনে কোকো লঞ্চ দুর্ঘটনায় ৮১জন যাত্রী প্রাণ হারান। মর্মান্তিক সেই দুর্ঘটনায় স্বজনহারা মানুষের কান্নায় আজও ভারী হয়ে ওঠে ভোলার আকাশ।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ার কারণে সেই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটলেও এখনও লালমোহন-ঢাকা লঞ্চ রুট নিরাপদ হয়নি। এখনও ধারণ ক্ষমতার অধিক যাত্রী নিয়ে চলছে অধিকাংশ লঞ্চ।

কোকো-৪ দুর্ঘটনায় লালমোহন উপজেলার চর ছকিনা গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে নূরে আলম সাগর, তার সদ্য বিবাহিত স্ত্রী ইয়াসমিন, শ্যালিকা হ্যাপি বেগম সেদিনের দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান। নূরে আলম ঈদুল আজহা উপলক্ষে নববধূ ও শ্যালিকাকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে ফিরছিলেন। কিন্তু সেই দুর্ঘটনায় ৩ জনই মারা যান। নব দম্পতির কথা মনে করে আজও আঁতকে ওঠেন ওই পরিবারের সদস্যরা।

একই এলাকার বাকলাই বাড়ির শামসুন নাহার স্বামী, সন্তান, দেবরসহ একই বাড়ির ১৬ জনকে নিয়ে কোকো লঞ্চে ঢাকা থেকে ফিরছিলেন বাড়িতে ঈদ করার জন্য। বাড়ির কাছের ঘাটে এসেই লঞ্চডুবিতে নিহত হয় তার মেয়ে সুরাইয়া (৭), ভাসুরের মেয়ে কবিতা (৩) ও দেবর সোহাগ (১৩)। শামসুন নাহারের মতো কোকো-৪ লঞ্চ দুর্ঘটনায় কেউ হারিয়েছেন পিতা-মাতা, কেউ হারিয়েছে সন্তান, কেউবা ভাই-বোন আর পরিবারের উপর্জনক্ষম একমাত্র ব্যাক্তিকে।

আব্দুর রশিদের পরিবারের মতো কোকো-৪ দুর্ঘটনায় স্বজন হারা অন্যরাও এখনও তাদের স্মৃতি আঁকড়ে বেঁচে আছেন।সেদিনের সেই মর্মান্তিক ট্রাজেডির কথা মনে করে শোক সাগরে ভাসছে পুরো দ্বীপজেলা।

২০০৯ সালের ২৬ অক্টোবর ঈদের আগে ঢাকা থেকে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে ভোলার লালমোহনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে লঞ্চটি। লালমোহনের নাজিরপুর ঘাটের কাছে এসে যাত্রী চাপে ডুবে যায় ওই লঞ্চ।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।