ভোলায় যৌতুকের জন্য পুলিশ সদস্যের স্ত্রীকে নির্যাতন।। সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধ

ভোলা সদর উপজেলার ভেদুরিয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের আবদুল মান্নানের ছেলে পুলিশ সদস্য জাকির হোসেন ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে যৌতুকের জন্য নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।
অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য জাকির (বিপি নং-৯২১২১৫৫১৮০) বরগুনা জেলার তালতলী থানায় কর্মরর্ত রয়েছেন বলে জানা গেছে।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পুলিশ সদস্য জাকিরের স্ত্রী বোরহানউদ্দিন উপজেলার দেউলা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের নুরুজ্জামান এর মেয়ে আফরিন আক্তার ইভা জানান, বিয়ের পর থেকেই আমাকে যৌতুকের জন্য বিভিন্ন সময় আমার স্বামী জাকির, বাসুর আজাদ হোসেন কালু, ননদ পারভিন মারধর করতো।
এক পর্যায়ে আমি সইতে না পেরে আমার বাবাসহ বরগুনা পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ করি, এর পর পুলিশ সুপার আমার স্বামী কে ডেকে একটি অঙ্গিকারনামা নিয়েছেন যে কোন সময় আমার স্বামী আমার কাছে যৌতুক চাইবে না এবং আমাকে মারধর করবে না ও ১ মাসের মধ্যে আমাকে তার কর্মস্থলের কাছে বাসা ভাড়া করে রাখবে।
ওই অঙ্গিকারনামার পর কয়েকদিন ভালো থাকলেও হঠাৎ গত তিনদিন আগে আমার স্বামীর নির্দেশে বাসুর আজাদ হোসেন কালু ও শাশুড়ি, ননদ মিলে পিটিয়ে আহত করে, মেরে ফেলার হুমকি দেয়, পরে রক্তাক্ত অবস্থায় আমি স্থাণীয়দের সহযোগীতায় বাড়ী থেকে রাস্তায় আসলে টহল পুলিশ আমাকে হাসপাতালে পাঠায়।
ভেলুমিয়া ফাঁড়ির উপ পরির্দশক শমসের আলী হাসপাতালে পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তবে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য জাকিরের বাড়ীতে গিয়ে তার বড় ভাই আজাদ হোসেন কালু কে পাওয়া যায়নি তবে জাকির মোবাইল ফোনে সংবাদ প্রকাশ না করতে অনুরোধ করেন এই প্রতিবেদক কে এবং ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন।
এই বিষয়ে বরগুনার পুলিশ সুপার ফারুক হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে ফোন বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।