সর্বশেষঃ

শ্রমিকলীগের বিভক্তি প্রকাশ্যে

পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার আগেই আওয়ামী লীগের অন্যতম ভাতৃপ্রতীম সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগের অভ্যন্তরীণ বিভক্তি প্রকাশ্যে এসেছে। ৫১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সোমবার আলাদা আলাদা কর্মসূচি পালন করেছেন সংগঠনটির শীর্ষ দুই নেতা- সভাপতি ফজলুল হক মন্টু এবং সাধারণ সম্পাদক আযম খসরু। সকালে শান্তির প্রতীক সাদা পায়রা উড়িয়ে জাতীয় শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উদ্বোধন করেন জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টু। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মুন্নুজান সুফিয়ান, সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান আকন্দ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে জাতীয় শ্রমিক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র্যা লি বের করেন সভাপতির অংশের নেতাকর্মীরা।
এদিকে একই দিন রাজধানীতে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলাদা কর্মসূচি পালন করেছে জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আযম খসরু ও তার কর্মী সমর্থকরা। ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর র‌্যালী বের করেন তারা। জাতীয় শ্রমিক লীগের ব্যানারে র‌্যালী লি নিয়ে তারাও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে রাজধানী ঢাকা ও আশপাশের বিভিন্ন ইউনিট থেকে আসা নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। তাদের ‘আযম ভাইয়ের ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই’সহ বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিতে দেখা যায়।
আলাদা আলাদা কর্মসূচি পালন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আযম খসরু সোমবার সন্ধ্যায় বলেন, কর্মসূচি আলাদা আলাদা হয়েছে। আমি কার্যনির্বাহী প্রধান, আমার সঙ্গে তার কথা হয়েছিল এক সঙ্গে কর্মসূচি দেয়ার। কিন্তু প্রেসিডেন্ট কেন দিছে সেটা তার বিষয়। ওই কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী গিয়েছিলেন। তারা তো আমাদের মুরব্বি। তারা তো ওই কর্মসূচিতে যেতে পারেন না। এর মধ্যে অবশ্যই কিছু আছে। সেটা আমি বলতে পারব না।
১৯৬৯ সালের ১২ অক্টোবর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় শ্রমিক লীগ প্রতিষ্ঠা করেন। শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের কল্যাণ এবং অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে গঠিত এই শ্রমিক সংগঠনের প্রথম সভাপতি নির্বাচিত হন প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা নুরুল হক। গত বছরের নভেম্বরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনের মিলনায়তনে জাতীয় শ্রমিক লীগের ১৩তম কেন্দ্রীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেই সম্মেলনে ফজলুল হক মন্টু সভাপতি এবং আযম খসরু সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।
এদিকে সম্মেলনে পরে পূর্ণাঙ্গ কমিটির কাজ শুরু করলেও পরে করোনা ভাইরাসের কারণে সেই কাজ স্থগিত করা হয়েছে। সম্প্রতি আওয়ামী লীগ আবার সংগঠন গোছানোর কাজ শুরু করলে সম্মেলন হওয়া অন্য সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে শ্রমিক লীগকেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি খসড়া জমা দিতে বলে। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মেনে যথাসময়ে পূর্ণাঙ্গ কমটির খসড়া তালিকা জমা দিয়েছে সংগঠনটি। তবে এখনও পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হয়নি। সুত্র : যুগান্তর।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।