লাউয়ের ওষুধি গুনাগুন

মোঃ মহিউদ্দিন
প্রভাষক
ভোলা ইসলামিয়া ইউনানী মেডিকেল কলেজ।

 

 

লাউয়ের আছে বহু উপকারী
ঔষধি ও পুষ্টিগুণ ,
তাই আমাদের বেশি করে
লাউ খাওয় প্রয়োজন।
পাকস্থলীর রোগ নিরাময়ে লাউ খুবই কার্যকর, লাউ খেলে ভালো হয়
কোষ্ঠকাঠিন্য, ক্ষুধামন্দা,গ্যাস্ট্রিক, আলসার।
লাউয়ের বীজে জিংক আছে প্রচুর,
লাউয়ের বীজ
ক্ষুধা মন্দা নিরসনে খুবই কার্যকর।
নিয়মিত লাউ খেলে পেটের রোগ হয় না,
বদহজম থাকেনা।
অতিরিক্ত পিপাসায়,
লাউয়ের রসের সাথে লেবুর রস দিয়ে
শরবত করে খেলে অল্প সময়ে ভালো হয়।
লাউয়ের রসে গুড় মিশিয়ে খেলে
জন্ডিস ভালো হয়।
লাউয়ের ডাটা বা পাতার চার চামচ রস
সকালে খালি পেটে খেলে,
কোষ্ঠকাঠিন্যে মুক্তি মিলে।
সকালে ঘুম থেকে উঠে
যদি মুখে তিক্ত স্বাদ অনুভূত হয়,
লাউয়ের পাতার শরবত খেলে
তিক্ত স্বাদ চলে যায়।
লাউ পুরিয়ে এর রস মুখে দিলে,
দাঁতের পাইরিয়া হলে মুক্তি মিলে।
দূষিত – দুরারোগ্য ক্ষত,
অল্প সময়ে ভালো হবে
লাউয়ের রস দিয়ে করলে ধৌত।
মেয়েদের মুখের মেছতা সহ অন্যান্য দাগে
এক টুকরো সাদা লাউ ঘষুন,
দাগ মুছে লাবণ্য ফিরে পাবেন।
ছানি পড়া রোগের সাদা পাপড়ি কচলিয়ে
দুই তিন দিন পর পর এক ফোঁটা করে
চোখে দিন ছানি পড়া বন্ধ হয়ে যাবে,
লাউয়ের ফুল একটু গরম পানিতে
ধুয়ে নিতে হবে।
নিয়মিত লাউ খেলে
কিডনির কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায়,
প্রসাবের সংক্রমণজনিত সমস্যা দূর হয়।
উচ্চ রক্তচাপ রোগীদের খাদ্যটি আদর্শক,
পেট ফাঁপা প্রতিরোধে খুবই সহায়ক।
এই সবজিটি দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে,
নিদ্রাহীনতা দূর করে,
দাঁত ও হাড়ে মজবুত করে,
চুলের গোড়া শক্ত করে,
চুল ধূসর হওয়া প্রতিরোধ করে,
তাইতো বাউল শিল্পী গেয়েছেন–
” লাউয়ের আগা খাইলাম গোড়ারে খাইলাম
লাউ দি বানাইলাম ডুগডুগি,
সাধের লাউ বানাইলো মোরে বৈরাগী”।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।