গলাচিপায় গণধর্ষেণের শিকার তরণী ৫ আসামী গ্রেফতার

গলাচিপা পৌরসভর পুরান লঞ্চঘাট এলাকার আবাসিক হোটেল সৈকতের ৭ নম্বর কক্ষে এক মাদ্রাসা ছাত্রী গণধর্ষেণের শিকার হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮ টা থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত পালাক্রমে হোটেল ম্যানেজার ফারুকের সহায়তায় এ ধর্ষণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

গলাচিপা থানার পুলিশ সূত্র জানায়, তরুণী বৃস্পতিবার গজালিয়া থেকে গলাচিপা আসে। সন্ধ্যায় আমতলীর সোনাখালী বোনের বাড়ি যাওয়ার জন্য স্থানীয় ফেরিঘাট এলাকায় আসে। এ সময় পূর্ব পরিচিত শহিদুলের সাথে দেখা হলে রাত হয়ে যাওয়ার অজুহাতে পুরান লঞ্চঘাট এলাকার একটি আবাসিক হোটেল সৈকতে র ৭ নম্বর কক্ষ ভাড়া নেয়। পরে রাত সাড়ে আটটার দিকে হোটেল ম্যানেজার ফারুকের সহায়তায় তরুণীর কক্ষে শহিদুল প্রথম প্রবেশ করে। পরে পর্যায়ক্রমে শহিদুল (২৪), বসির (৩২), জিতেন, খোকন ডাক্তার পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এসময় গলাচিপা থানার একটি মোবাইল টিম খবর পেয়ে তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
এ প্রসঙ্গে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. হুমায়ুন কবির বলেন, তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে শুক্রবার পটটুয়াখালী মেডিকেলে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত ৫ আসামী গ্রেফতার করা হয়েছে। হোটেল ম্যানেজার ফারুক পলাতক রয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।