সর্বশেষঃ

ভোলার রাজাপুরে স্ত্রীর পরকিয়ায় বাধা দেওয়ায় স্বামীকে মেরে রক্তাক্ত

ভোলার রাজাপুর ইউনিয়নের রামদাসপুরের ১ নং ওয়ার্ডে স্ত্রীর পরকিয়ায় বাধা দেওয়ায় স্বামীকে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। আহত স্বামীকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পরের দিন সকালে ভোলা সদর হাসপাতালে এনে ভর্তি করান।
সূত্রে জানা গেছে, ভোলার রাজাপুর ইউনিয়নের রামদাসপুরের ১ নং ওয়ার্ডে ইউসুফ স্ত্রী মারজান বেগমকে রাতে আপত্তিককর অবস্থায় নিজ ঘরে দেখে স্থানীয় প্রভাবশালি শাবু কে জিজ্ঞাসা করলে শাবু চিৎকার করে তার ভাইদের ডেকে এনে শাবু সহ তার ভাই ইকবালকে নিয়ে এলোপাথারি গাবের লাঠি দিয়ে মেরে রক্তাক্ত করে মাঠিতে ফেলে দেয়। পরে স্থানীয়রা মারজানের স্বামী ইউসুফকে আহত অবস্থায় তার পরেরদিন সকালে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।
মারজানার স্বামী ইউসুফ জানান, আমরা নদী ভাঙ্গা পরিবার। আমার কোন জমি না থাকায় আমি শাহাবউদ্দিন ভাইর জমিতে এসে বাড়ি করে থাকার অনুমতি দিয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় আমি আমার স্ত্রী মারজান ও দুই সন্তান সহ বসবাস করে আসছি। এরই সুযোগে সাহাবুদ্দিন আমার স্ত্রীকে আমাদের দরিদ্রতার সুযোগে টাকার লোভ দেখিয়ে একের পর এক পালাক্রমে ধর্ষন করতে থাকলে গত ১৬/০৬/২০২০ ইং তারিখে পূর্বের সন্দেহ বশত আমি ঐ দিন নদীতে যাওয়ার কথা বলে বাসার সামনে বাগানে অপেক্ষায় থাকি। রাত ৩ টার দিকে আমার সংসার ভাঙ্গার মুল পরিকল্পলাকারি শাহাবউদ্দিন সাবু আমার ঘরে আমার স্ত্রী মারজানার বুকের উপর।
ধর্ষনের কথা অস্বীকার করেছেন ইউসুফের স্ত্রী মারজান বেগম। তিনি জানান, রাতে শাবু ভাই আমার বাসায় আইছে ঠিক আছে, কিন্তু কোন খারাপ কাজ করেনী।
এদিকে রামদাসপুরের দুই ইউপি সদস্য দুলাল ও নিকু জানান, সাবু রাতে মারজানের ঘরে গেছে কিন্তু কোন খারাপ কাজ করেনি।
পরকিয়া প্রেমীক শাবুর সাথে যোগা যোগ করার চেস্টা করা হলে তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।
মারজানার স্বামী ইউসুফ বলেন, দুই ইউপি সদস্য দুলাল ও নিকু কে জানালে তারা আমাকে উল্টো ধমক দিয়ে আমছে। তিনি আরো জানান, শাহাবউদ্দিন এলাকায় প্রভাবশালি হওয়ায় তিনি অসহায় পরিবারকে মানুষই মনে করেন না। তার কারন হলো সাবু অপকর্ম করলে তার সেল্টারদাতা হয়ে দাড়ায় সেখানের দুই ইউপি সদস্য।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জানান, রামদাসপুরটি রাজাপুর থেকে বিছিন্ন হওয়ায় সেখানে ইউপি সদস্যরা অসহায়দের উপর স্টীম রোলার চালাচ্ছে এবং চরটি ভোলার থেকে বিছিন্ন হওয়ায় প্রশাসনের নেই কোন তৎপর। তাই আমি প্রশাসনের কাছে মাদক সহ নানা অপকর্ম রুখতে সেখানে রীতিমত টহলের জোরদার দাবি জানাচ্ছি।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।