ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মুমিন জালিয়াতি মামলায় আটক

বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ এর সহ-সভাপতি তরিকুল ইসলাম মুমিন জালিয়াতি মামলায় ভোলা থেকে আটক হয়েছে । গত বুধবার ভোলার বাসা থেকে তরিকুল ইসলাম মুবিন কে গ্রেফতার করে ঢাকা তেজগাঁও থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।
ভোলার পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের পাখিরপুলে বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ- সভাপতি তরিকুল ইসলাম মুমিনের বাড়ী থেকে গত ৬ ই মে ঢাকা থেকে আসা সিআইডি ফোর্স ও ভোলা সদর থানা পুলিশের যৌথ অভিযানে রাত-৩ টায় আটক করে মুমিনকে পুলিশ। পরে ছাত্রলীগ নেতা মুমিন কে সিআইডি পুলিশ রাজধানী কোতয়ালি থানায় নিয়ে যায়।

তথ্যসূত্রে জানা যায়, তার বিরুদ্ধে রাজধানী ঢাকার কোতয়ালি থানায় একটি জালিয়াতির মামলা দায়ের করার প্রেক্ষিতে তাকে আটক করেছে পুলিশ। এ ব্যাপারে আরও জানা যায়, ঢাকার একজন ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে একটি প্রকল্পের কাজের তদবির করে দিবে বলে প্রায় ০৪ চার কোটি টাকা নেয় তরিকুল ইসলাম মুমিন। পরে সে টাকা নিয়ে উধাও হয়ে নিজের জন্মস্থান ভোলায় পলাতক রয়েছেন বলে জানতে পারে ঢাকার সিআইডি পুলিশ। বিষয়টি জানার পর ঢাকা থেকে আসা সিআইডি ফোর্স ও ভোলা সদর থানা পুলিশের যৌথ অভিযানে বুধবার রাত-৩ টায় আটক করে মুবিনকে ঢাকায় নিয়ে যায় সিআইডি ফোর্স ।

এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভোলা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃএনায়েত হোসেন।

এই ঘটনা ছাড়াও ছাত্রলীগ নেতা মুমিনের বিরুদ্ধে আরো অনেক অভিযোগ বেশ কিছুদিন ধরেই শোনা যাচ্ছিলো,তার মধ্যে রয়েছে চাকরি দেওয়ার নাম করে লোকজনের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়া, নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করিয়ে দেওয়ার কথা বলে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নেয়া এবং ভোলা ১ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব তোফায়েল আহমেদের নাম ভাঙ্গিয়ে বিভিন্ন জায়গায় চাঁদাবাজি করেছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে মোমিনের বিরুদ্ধে। এনিয়ে এমপি মহোদয় কেন্দীয় ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের কাছেও অভিযোগ করেছেন বলেও শোনা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে বাংলাদেশ ছাএলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এর সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেস্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।