বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর এই মাজেদ আমার এপিএসকে মেরে বুড়িগঙ্গা নদীতে ফেলে দিয়েছেঃ তোফায়েল আহমেদ

বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পরদিন এই মাজেদ আমার এপিএস কে অত্যাচার করে মেরে বুড়িগঙ্গা নদীতে ফেলে দিয়েছে। লাশও পাওয়া যায়নি তার। পরে মাজেদ ও শাহরিয়ার মিলে আমাকে আটক করে নির্যাতন করেছে বলে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায়  মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও ভোলা-১ আসনের এমপি তোফায়েল আহমেদ।

বুধবার (৮ এপ্রিল) সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেয়া এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘সমস্ত বাঙালি জাতি বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন (অবসরপ্রাপ্ত) মাজেদের গ্রেফতারের খবর শুনে ভীষণ উল্লসিত ও আনন্দিত। বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করে বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে ধ্বংস করার চেষ্টা করেছিল, একটি স্বপ্নকে হত্যা করার চেষ্টা করেছিল, ক্যাপ্টেন মাজেদ ছিল তাদের অন্যতম ‘

তিনি বলেন, ‘সে একটা দুর্ধর্ষ প্রকৃতির লোক। বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা ছাড়া যারা বিদেশে ছিলেন, বাকি সবাইকে হত্যা করে ফেলেছিল। এমনকি খুনি মাজেদ আমার এপিএস ১৯৭৩ ব্যাচের প্রশাসনিক কর্মকর্তা শফিকুল আলম মিন্টু, তাকে গ্রেফতার করে, নির্যাতন করে তাকে হত্যা করে তার লাশ বুড়িগঙ্গা নদীতে ভাসিয়ে দিয়েছে।’

সোমবার (৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত সাড়ে ৩টায় মিরপুর সাড়ে ১১ নম্বর থেকে গ্রেফতার করা হয় বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনি মাজেদকে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে পলাতক ছিলেন। তার ফাঁসির পরোয়ানা ইস্যু করেছেন আদালত।

 

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।