ঘুষখোর

ডাঃ মোঃ মহিউদ্দিন

অফিসে – আদালতে
বসে আছেন ঘুষখোর,
কখন কে যে উৎকোচ নিয়ে
টোকা দিবে অফিসের ডোর ।
সেই আশায় হা- হুতাশ
কালো টাকা কামানোর
চিন্তায় সে বিভোর।

সোজাসাপ্টা ফাইলগুলো
জটিলতার সৃষ্টি করে,
ফাঁকিঝুঁকি সৃষ্টি করে
ঘুষের টাকায় পকেট ভরে।

নামে-বেনামে ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট খুলে
কালো টাকার পাহাড় গড়ে,
ভুক্তভোগীরা হা-হুতাশ করে
এদের পিছু পিছু ঘোরে।
আজকাল করে কাগজপত্র
ঠিক হবে বলে পায়ের জুতা ক্ষয় করে।

দুই হাতে করে কালো টাকা কামাই,
সংসার যে তাদের গোল্লায় যায়
সেই খবর রাখার নাই।

ঘুষখোরের পরিবার
অধিক বিলাসিতায় কাটায় জীবন,
সন্তানেরা অমানুষ হয়
পড়া লেখায় বসে না মন।

ঘুষ খোরের কালো টাকা
কাঠ পোড়া ছাঁইয়ের সমান,
সুশীল সমাজ নিন্দা করে
পথে-ঘাটে পায়না সম্মান।

পাপে যখন পূর্ণ হয়
ঘুষ খোরের জীবন,
সাঙ্গ হয় তার রং তামাশা
সাঙ্গ হয় তার ধন।

আরও পড়ুন

পরোপকার

পরোপকার

লকডাউনের ঈদ

লকডাউনের ঈদ

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।