শেখ হাসিনার বাংলাদেশে কেউ না খেয়ে থাকবে না- এমপি শাওন

ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) এর সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার বাংলাদেশে কেউ না খেয়ে থাকবে না। সকলে লক ডাউন মেনে চলুন। আপনি খাবারের পেছনে নয় খাবার আপনার পেছনে ছুটবে। মনে রাখবেন এটা জননেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। এখানে খাবারের জন্য কাউকে জীবন দিতে হবে না।
৩ এপ্রিল ২০২০ শুক্রবার সকালে লালমোহন সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল পার্ক মাঠে লক ডাউন মেনে চলা অসহায় হতদরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন কালে প্রধান অতিথী এমপি আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন আরো বলেন আপনারা সকলেই আবগত আছেন সারা পৃথিবী আজ করোনা ভাইরাস এ আক্রান্ত। সারা পৃথীবি আজ আতঙ্কিত। বিশেষ করে এই করোনা ভাইরাস চায়না থেকে শুরু করে আজকে উন্নত বিশ্বে যেমন ফ্রান্স, স্পেন, ইতালিসহ সমগ্র ইউরোপের মানুষ আজকে এই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত।প্রতিদিন প্রতিদিন প্রায় হাজারের মত মানুষ মারা যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের মত উন্নত প্রযুক্তি সম্পূর্ণ ও শক্তিশালী রাষ্ট্র আজকে করোনা ভাইরাসের কাছে একবারেই আসহায়। আমাদের পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র ভারত সেখানে কার্পু জারিসহ বিভিন্ন ভাবে লগডাউন করে চেষ্টা করছে করনো ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে। সৌদি আরবে কার্পু জারী করছে। আপনারা অনেকে বাজারে চায়ের দোকানে বসে আযথা আড্ডা মারতাছেন। আপনারা একজন যদি এই রোগটা বহন করে ফেলেন এটা আপনার জন্য বা আপনার পরিবারের জন্য অনেক ক্ষতির কারন হয়ে দাড়াবে। আপনি টেরও পাবেন না আপনার পরিবারের লোকজনও বলতে পারবে না। এটা আস্তে আস্তে দ্রুত ছড়িয়ে পড়বে। এজন্য আমাদের প্রত্যেককে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে হবে। এই রোগটাকে গুরুত্ব দিতে হবে। বারবার আমাদের সরকার প্রধান গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় সফল প্রধানমন্ত্রী সফল রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা তার দুরদর্শীতা দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে। সামনের ১৫দিন আমাদের লগডাউন করে ঘরে থাকতে হবে। আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ চেয়ারম্যান কাউন্সিলরসহ সকলকে বলেছি লোকজনকে ঘরে রাখার ব্যবস্থা করতে। আমরা আপদত লালমোহনে ১০ হাজার পরিবার ও তজুমদ্দিনে ৫ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা শুরু করছি। এটা অব্যাহত থাকবে। এখানে একটি লোকও না খেয়ে থাকবে না। এটা শেখ হাসিনার বাংলাদেশ এখানে কেউ না খেয়ে মারা যাবে না। আপনাদের ঘরে ঘরে আমরা মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য উপকরন পৌঁছে দিব। তিনি উপস্থিত সকলকে হাত তুলে বলেন ওয়াদা নেন যতদিন পর্যন্ত করোনা পরিস্থিতি ভালো না হবে ততদিন পর্যন্ত সকলে ঘরের মধ্যে থাকবে।
ত্রান সামগ্রীর মধ্যে ছিল প্রতিটি পরিবারের জন্য ১০ কেজি চাল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি ডাল, ১ কেজি লবন, ১ কেজি তেল, ১ কেজি পিয়াজ দেয়া হয়েছে। এসময় অনান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লালমোহন উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসান রিমন, লালমোহন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান রুমি, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেলুর রহমান, লালমোহন থানার ওসি মীর খাইরুল কবীর, পৌর আওয়ামীলীগ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম বাদল, উপজেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম রিপন, প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্ধ ।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।