জব্দকৃত চাল আড়ৎ মালিক সমিতির জিম্মায় দিলো প্রশাসন

ভোলায় সরকারী গুদামের চাল নকল প্যাকেটজাত কালে আটক

(ফাইল ছবি)

ভোলা শহরের খালপাড় রোডের একটি গুদান থেকে সরকারী গুদামের মোটা চালের প্যাকেট নকল প্যাকেটজাত কালে আটক করেছে ভোলা জেলা প্রশাসন। প্রায় ১২শ’ বোস্তা সরকারী ওই চাল আপেল মার্কা ছাপানো বোস্তায় প্যাকটজাত করা হচ্ছিল। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রংপুর বিভাগের স্বনামধন্য মেসার্স ব্রাদার্স অটো রাইস নামের একটি কোম্পানীর প্রতিক হচ্ছে আপেল। আর ওই প্রতিকের নকল ব্যাগ বানিয়ে ভোলার গুদামটিতে সরকারী চাল প্যাকেট করা হচ্ছিল এমন খবর পেয়ে ২০ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার দুপুরে ভোলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমান মোবাইল টিমের ম্যাজিষ্ট্রেট সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ওই গুদামটিতে হানা দেয়। এ সময় ভোলা ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক মাহমুদুল হাসান উপস্থিত ছিলেন।
তিনি গণমাধ্যমকে জানান, অবৈধ কারবারের দায়ে চালগুলো জব্দ করা হয়েছে। সীলগালা করে দেয়া হয়েছে গুদামটি। এই ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন। এদিকে জব্দকৃত চালগুলো আড়ৎ মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দের জিম্মায় রাখেন প্রশাসন। এক ব্যবসায়ীর অভিযোগ চালের বস্তাগুলো চাল মালিক সমিতির জিম্মায় রাখায় শহরের নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। সুশীল সমাজের ব্যক্তিদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
খোদ ভোলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মাহমুদুল হাসানও বিষয়টি নিয়ে সংবাদকর্মীদের মাঝে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।
খালপাড়ের অপর এক ব্যবসায়ী জানান, ব্যবসায়ী নুরুল হক বাঘা’র গুদামটি ভাড়া নিয়ে মোস্তাফিজ গোলদার দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ব্রান্ডের কোম্পানীর নকল মার্কা লেভেল লাগিয়ে সরকারী খাদ্য গুদামের মোটা চাল অধিক মুনাফা লাভের আশায় বিক্রি করে চলছেন।
এদিকে জব্দকৃত চালগুলো সরানোর জন্য শহরের চোরাকারবারীদের একটি সিন্ডিকেট দৌড়-ঝাপ শুরু করেও তাকে কোন লাভ হয়নি।
এব্যাপারে অভিযুক্ত গুদামের মালিক মোস্তাফিজ গোলদারের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, ভাই আমি কোন দিনই এগুলো করিনি। যাও একটু করেছি, তাও ধরা খেয়ে গেলাম। তিনি আরো বলেন, আমার মত এরকম কাজ খালপাড়ের অনেক ব্যবসায়ী-ই করে থাকেন। আমি করলে দোষ কি ? তবে আমার মাল আমি ছাড়িয়ে আনবোই।
এ ব্যাপারে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সাইফুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অভিযুক্ত ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে আইনগত প্রক্রিয়া চলছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।