যখন তখন চলতো গৃহকর্ত্রীর অমানুষিক নির্যাতন, দাবী গৃহকর্মীদের

শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগে রাজধানীর স্বনামধন্য একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকের বাসা থেকে ৩ জন গৃহকর্মীকে উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলাবহিনী। ভুক্তভোগীদের দাবী, বেতন না দেয়াসহ কাজে একটু গাফিলতি মনে হলেই চলতো গৃহকর্ত্রীর অমানুষিক নির্যাতন। তবে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী বলছে ভুক্তভোগীরা কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের না করায় কাউকে আটক করা হয়নি। অন্যদিকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীদের স্বজনরা।

কাজে একটু এদিক সেদিক কিংবা দেরি হলেইও চলতো গৃহকর্ত্রীর কিল-ঘুষি। শুধু গৃহকর্ত্রী সাবরিনা বেগম নন, বাড়ির অন্য কর্মচারিদের দিয়েও চালান হতো অমানুষিক নির্যাতন। কখনও কখনও দায়িত্বরতদের নির্যাতনের মাত্রা পছন্দ না হলে ফের চড়াও হতেন সাবরিনা। অত্যাচারের মাত্রা বেশি হলে মাঝে মাঝে লোক দেখানো ডাক্তার মিললেও, মিলতো না পথ্য। এভাবেই জয়নবসহ ৩ গৃহপরিচারিকার কেটে গেছে প্রায় ৮ বছর। শত অনুনয় সত্ত্বেও মিলতো না স্বজনদের দেখা।

জয়নাব বলেন, একটা কাজ রেখে আরেকটা করতে গিয়েছি, তখন কেন দেরি হয়েছে ওটার জন্য মারামারি শুরু করে দেয়। আর মারার কোন ঠিক ছিল না, মারতে মারতে রক্ত বের করে দেয়।

বয়স্ক আরেক গৃহকর্মী বলেন, আমার মা মারা গেছেন, কিন্তু আমাকে দেখতেও যেতে দেয়নি।

শিশু গৃহকর্মী জানান, আমার গলা চেপে ধরেছিল, রক্ত বের হয়ে গেছিল। নখের সাথে মাংস উঠে এসেছিল।

অন্যদিকে ভুক্তভোগীদের স্বজনরা জানান, জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলেও কাউকে আটক করেনি র‌্যাব।

স্বজনরা বলেন, আমরা র‌্যাবের সাথেই ঢুকেছিলাম, একটু পরে একটা ফোন আসে, বলে অভিযান বন্ধ।

তবে র‌্যাবের দাবি মামলা চায় না অভিযোগকারীরা।

র‍্যাব-৪ অধিনায়ক মো. মোজ্জামেল হক ফোনে সময় সংবাদকে বলেন, একটা গৃহকর্মীকে আসলে তারা দেখা করতে দেয় না, এরকম একটা অভিযোগ ছিল। সে অনুযায়ী আমরা উদ্ধার করেছি। কিন্তু তারা কোন মামলা করবে না, মেয়ে নিয়ে চলে যাবে। সেই হিসিবে আমরা হস্তক্ষেপ করেছি। এখন বাদী কন্টেস্ট না করলে তো আমরা মামলা দিতে পারিনা।

গত বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে বনানীর ডিওএইচএস এলাকায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ইশতিয়াক আবেদীনের বাসা থেকে গুরুতর জখম অবস্থায় জয়নব নামে ১৭ বছর বয়সী এক গৃহকর্মীকে উদ্ধার করে র‌্যাব। এর আগে গত ২০ জানুয়ারি একই বাসা থেকে আরও দুই জনকে উদ্ধার করে পুলিশ।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।