মেঘালয়

ড. তাইবুন নাহার রশীদ

মালয়েশিয়া কুয়ালালাপমুর গিয়ে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে হোটেল ফরচুনায় উঠলাম। হোটেলটা মন্দ ছিল না। দেখে পছন্দ হলো। কিছু নাস্তা খেয়ে শহর দেখতে বের হলাম। টুইন টাওয়ার দেখলাম যা আমেরিকা নিউইয়র্কে দেখেছিলাম। আমেরিকার টুইনটাওয়ার আরো বিশাল, আরো অনেক বড়। রাজার বাড়ী দেখলাম, অপরূপ কারুকার্য খচিত জাক-জমকপূর্ণ কত ঐশ্বর্য থাকলে কুয়ালালামপুরের রাজা তার বিরাটত্ব প্রকাশ করছে। কোন নিপুন শিল্পী কতদিনের পরিশ্রমে তার কল্পনায় এ রূপ দিয়েছে। ঘুরে ফিরে অনেক্ষণ দেখলাম বিশাল বাড়ীটিকে। হাইকোর্টেও অনেক বিশাল, অনেক কারুকার্য খচিত।
দূর থেকে পার্লামেন্টের কিছু কিছু অংশ দেখলাম। সত্যি এরা নিজের দেখকে কত ভালবাসে। নিজের ছেলে মেয়ের মত মায়া মমতায়, ¯েœহ-ভালবাসায় আপন করে একে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরেছে। এয়ারপোর্টটা আরো অপরূপ মন ভুলানো। বসলে এয়ারপোর্ট ছেড়ে প্লেনে উঠতে ইচ্ছে করে না। মনে হয় সারা জনম ঐ এয়ারপোর্টের সৌন্দর্য্যের দিকে তাকিয়ে থাকি।
তবুও প্লেনের এলাউন্সমেন্ট শুনে প্রত্যেক যাত্রীই প্লেনের দিকে এগিয়ে গিয়ে নিজের সিট দখল করে বসে পড়ে। পৃথিবীটা কত সুন্দর, সুন্দর বিখ্যাত জায়গাগুলি দেখে হোটেলে এসে খাওয়া-দাওয়া করে ঘুমিয়ে পড়লাম। খুব ভোরে উঠে নাস্তা খেয়ে গাড়ী ভাড়া করে গ্যাংটিনের পথে পাড়ি জমালাম। প্রায় দেড় ঘণ্টা লাগে গ্যাংটিনে যেতে। পথে কত বিখ্যাত মন্দির, গীর্জা দেখার মত অনেক কিছু ছিল। কিন্তু গতকালের সারা গাড়ীতে থাকার ক্লান্তিতে আর নেমে দেখতে মন চাইল না। আমার গ্যাংটিনে পৌছে গেলাম। কিন্তু আগের মত গা বেয়ে উচু-নিচু রাস্তা মেঘালয়ের ভিতর দিয়ে উঠার জায়গা পেলাম না। আমরা “কবলে” চড়ার টিকিট কেটে, “কেবলে” চড়ার জন্য দাঁড়িয়ে থাকলাশ। কেবলগুলো, এসে তড়িতে থামল, তাড়াতাড়ি করে আমার দুই ছেলে, দুই বৌমা ও আমি উঠে পড়লাম। “কেবল” কত রাজ্য ও নৈরাজ্য বন বনান্তর, ঝোপ-ঝাপ, উচু ও নিচুতে দৌড়ে চলতে লাগল। মেঘের দেশে, মেঘ রাজ্যে, মেঘকন্যা এলোমলো বিশাল চুল ছড়িয়ে দিয়ে ডাগর ডাগর চোখে যেন আমাকে হরিণ নয়না চোখ মেলে তাকিয়ে দেখছে। তার চোখ ঝলসানো, মনমাতানো এসব দেখে আমার মনের খেয়াল হারিয়ে ফেলেছিলাম।
যখন একটি বিশাল প্রসাদে নামিয়ে দিল, তখন আমি দেখলাম যে, সাত বছর পূর্বে যে সৌন্দর্য দেখে টাকা পড়ে গিয়েছিল; এই প্রসাদ টাকা তৈরীর একটি যন্ত্ররূপে আবিস্কৃত হয়েছে। আসল সৌন্দর্যকে দুমড়ে মুচড়ে মেঘের রাজ্যে বিলীন করে দিয়েছে। মেঘ আর আগের মত হাসছানি দিয়ে কাঝে টেনে নেয় না। প্রিয়া আর প্রিয়ের মিলনে, চুম্বনে, আলিঙ্গনে বুক ভরে দেয় না। বিশাল প্রসাদ আর কাঁচের ফাঁকে মেঘকে দেখছি, কিন্তু একটু ছুয়ে দেখতে পারি নি। আমাকে আর মেঘ ঢেকে দেয় না। প্রকৃতি বিশাল সৌন্দর্যকে প্রসাদের কারিগর কাঁচের দেয়ালের ভিতরে ভিতরে বন্দি করে রেখেছে। জানি না রাজপুত্র যদি মরণ কাঠি জিয়ণ কাঠি বদল করে এই ঘুমন্ত মেঘালয়কে জাগিয়ে তুলতে পারে।
ম্যাগডোনালে খেতে গেলাম। হঠাৎ আমার চোখে সুদিনকে দেখলাম, তেমনি সুন্দর ফর্সা, সুন্দর, সুন্দর ডাগর ডাগর চোখ, টিকালো নাম। চুলে কিছুটা পাক ধরেছে। আমাকে দেখে বিস্ময় নিয়ে তাকিয়ে থাকলো। বললো, আরে তুমি এখানে ? কোথা থেকে ? বললাম, সিঙ্গাপুর থেকে। তুমি ? বলল, খুলনা থেকে এতদূর এসেছ ? কেমন আছ ? এই সুদিন দৌলতপুর কলেজে বি.এ পড়ছিলো। আমি তখন বি.এ সেকেন্ড ইয়ারে আনর্স পড়ছিলাম। নীলাও আমাদের সাথে অনার্সের ছাত্রী ছিল। অপূর্ব সুন্দরী লম্বা ফর্সা বড় বড় হরিণ নয়ণা চোখ। বাগেরহাটের সদর মহকুমা অফিসারের মেয়ে ছিল।
সুদিনের সেই অনাকাংখিত সাক্ষাৎ আমাকে পুরানো ইতিহাস স্মরণ করিয়ে ব্যথিক করে তোলে। আমি স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে সভাস্থল থেকে কিছুক্ষণেল জন্য হারিয়ে গিয়েছিলাম। আমার আনমনা ভাবমূর্তি ছেলে ও বৌমাকে আবেগ তাড়িত করে তোলে। নতুন পরিবেশ, পুরনো স্মৃতিকে ম্লান করে দেয়। কিন্তু নতুন স্মৃতিচারণ তাকে পুনঃর্জীবিত করে। ইতমধ্যে মনে পড়ে যায় একটি গানে কথা-“আজ দু’জনার দুটি পথ ওগো দুটি দিকে গেছে বেঁকে।”

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।