ভোলায় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ৪৭৩২৬ পরীক্ষার্থী

সারাদেশের মতো আজ ভোলায়ও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবছর জেলায় ইবতেদায়ী ও প্রাথমিকে অংশ নিচ্ছে ৪৭ হাজার ৩শ’ ২৬ জন পরীক্ষার্থী। এবারের পরীক্ষায় ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার্থী বাড়লেও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার্থী কমেছে।
ভোলা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের তথ্যমতে ২০১৮ সালে প্রথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৪০ হাজার। এবার সেই সংখ্যা কমে দাড়িয়েছে ৩৪ হাজার ৮শ’ ১৬ জনে। অন্যদিকে ২০১৮ সালে ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষার্থী ছিল ৮ হাজার। কিন্তু এবছর সেই সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। এবছর ইবতেদায়ীতে পরীক্ষা দিবে ১২ হাজার ৫১০ জন।
আজ প্রথম দিন ইংরেজী বিষয় দিয়ে শুরু হওয়া পরীক্ষায় ভোলার ৭ উপজেলায় প্রাথমিকে মেয়েদের সংখ্যা ২০ হাজার ৩শ’ ৭১ জন ও ছেলদের সংখ্যা ১৪ হাজার ৪শ’ ৪৫ জন। ভোলা জেলার মোট ১০৪৭ টি স্কুলের পরীর্থীরা ৯৫ টি কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে। ভোলা সদর উপজেলার ২১০টি স্কুলের খুদে পরীক্ষার্থী সংখ্যায় ৩ হাজার ২শ’ ৯৩ জন ছেলে ও ৪ হাজার ৫শ’ ৯৮ জন মেয়ে। ভোলার প্রতিটি উপজেলায় ছেলের চেয়ে মেয়ে পরীক্ষার্থী বেশি। এদিকে ইবতেদায়ীতে ভোলা জেলায় ছেলে পরীক্ষার্থী ৬ হাজার ১শ’ ৫৪ জন হলেও মেয়ে পরীক্ষার্থী ৬ হাজার ৩শ’ ৫৬ জন।
পরীক্ষা চলাকালিন সুষ্ঠ পরিবেশ বজায় রাখার ব্যাপারে ভোলা সদর উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (টঘঙ) মোঃ কামাল হোসেন বলেন, পরীক্ষা চলাকালিন ভোলা সদরের ২১টি কেন্দ্রে ৫ জন ম্যাজিস্ট্রেট ও একজন এডিসি পদ মর্যাদার কর্মকর্তার নেতৃত্বে ৩ সদস্য বিশিষ্ট ভিজিল্যান্স টিম থাকবে। এছাড়া আইনশৃড়খলা বাহিনীর পর্যাপ্ত সদস্য নিয়োজিত আছে।
অন্যদিকে ভোলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) সূত্রে জানা যায়, ভোলা জেলার ৭টি উপজেলায় পরীক্ষা চলাকালিন প্রায় ১৭ জন ম্যাজিস্ট্রেট ও ২০ টি ভিজিল্যান্স টিম কাজ করছে।
ভোলার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র হালদার বলেন, ভোলা জেলার চরফ্যাশন, তজুমুদ্দিন ও মনপুরা উপজেলার দূর্গম এলাকায় ৫টি কেন্দ্র আছে। যেখানে পরিবার আগের দিন পরীক্ষা কেন্দ্রের নিকটবর্তি পুলিশ ফাঁড়িতে প্রশ্নপত্র সংরক্ষণ করা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, চরফ্যাশন উপজেলার চরমোতাহার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুকরি-মুকরি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঢালচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, তজুমুদ্দিন উপজেলার চরজহিরুদ্দিন মরিয়ম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মনপুরা উপজেলার কলাতলি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রগুলো এতটাই দূর্গম এলাকায় যে, ট্রলার, বাইক, অটোরিক্সায় যেতেও প্রচুর সময় ব্যায় হয়। অথচ এই ৫ টি কেন্দ্রে ৯৪৯ জন পরীক্ষার্থী আছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।