রাজশাহীতে ঘুষি মেরে শিক্ষকের নাক ফাটালেন আরেক শিক্ষিকার স্বামী

রাজশাহীর চারঘাটে এক শিক্ষকের নাক ফাটিয়ে রক্তাক্ত করেছেন একই প্রতিষ্ঠানের মেরাতুন খাতুন নামে এক শিক্ষিকার স্বামী।

বুধবার উপজেলার ধর্মহাটা সরকারি বিদ্যালয়ে এই ঘটনাটি ঘটে। আহত ওই সহকারী শিক্ষকের নাম বজলুর রশীদ। বর্তমানে তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আহত শিক্ষক বজলুর রশীদ জানান, তিনি অন্যদিনের মতো দ্বিতীয় শ্রেণির ক্লাস নিতে যান তিনি। গিয়ে দেখেন মেরাতুন খাতুন প্রথম ক্লাস শেষ করে দ্বিতীয় আরেকটা ক্লাস নেয়া শুরু করেছেন। তিনি একসঙ্গে পরপর দুইটা ক্লাস না নিয়ে শিক্ষিকাকে দ্বিতীয় ক্লাসটা পরে নিতে বলেন।

তাতে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইদ্রিস আলী এসে দুজনকে শান্ত করেন। কিন্তু তার কিছুক্ষণ পরেই মেরাতুন খাতুনের স্বামী হাবিল উদ্দীন স্কুলে উপস্থিত হয়ে বজলুর রশীদকে কিল ঘুষি মেরে নাক ফাটিয়ে রক্তাক্ত করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ধর্মহাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইদ্রিস আলী বলেন, একসঙ্গে শিক্ষকতা করতে গেলে একটু আধটু মনোমালিন্য হয়ে থাকে। কিন্তু শিক্ষিকার স্বামী এসে কোনো কথা না শুনেই শিক্ষক বজলুর রশীদের নাক ফাটিয়ে দিয়েছেন।

স্বামীর এই অপকর্ম প্রসঙ্গে শিক্ষিকা খাতুন বলেন, সহকারী শিক্ষক বজলুর রশীদ দেরিতে স্কুলে এসেছেন। এজন্য তিনি প্রথম ক্লাস শেষ করে দ্বিতীয় ক্লাস শুরু করেন। এই কারণে বজলুর রশীদ তাকে কটু কথা বলেছেন। তখন তিনি স্বামীকে ফোন করে ডেকে নেন।

এ ব্যাপারে চারঘাট উপজেলা শিক্ষা অফিসার রশিদা ইয়াসমিন জানান, আমি ঘটনাটি সম্পর্কে অবগত হয়েছি। উক্ত ঘটনার সঠিক তদন্ত শেষে শিক্ষিকার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। স্কুলের ভেতরে শিক্ষকের গায়ে হাত দেয়া বড় অপরাধ।

ফেসবুকে লাইক দিন

আমাদের সাইটের কোন বিষয়বস্তু অনুমতি ছাড়া কপি করা দণ্ডনীয় অপরাধ।